আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা কি

বিভিন্ন গবেষণায় উঠে এসেছে জীবনে সফল হবার জন্য উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা খুবই জরুরী। গবেষকরা দাবি করেন উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা আইকিউ এর থেকেও বেশি জরুরি। উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা অধিকারী মানুষেরা শুধু যে জীবনে সফলতা লাভ করে তাই নয় বরংচ দেখা গেছে যেকোনো সম্পর্কের ক্ষেত্রে এরা অনেক বেশি বিশ্বস্ত থাকে একই সাথে এরা সুখী ও হয়। আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা পরিমাপ করার জন্য কিছু টেস্ট আছে। এছাড়াও নিম্নের বৈশিষ্ট্য গুলো যদি আপনার মধ্যে উপস্থিত থাকে। তবে বুঝবেন যে আপনি একজন উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষ।
আবেগ বোঝার ক্ষমতা
উচ্চ বুদ্ধিমত্তা সম্পূর্ণ মানুষেরা নিজেদের নিয়ে অনেক বেশি সচেতন থাকেন। মানবীয় আবেগ সম্পর্কে তাদের খুব ভালো ধারনা থাকে। মানুষের আবেগ সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকায় এরা যখন আনন্দে থাকে তখন সে আনন্দকে হাসিখুশি বলেই শুধুমাত্র সংজ্ঞায়িত করে না। এর সাথে সাথে তারা নিজেদের সন্তুষ্ট উৎফুল্ল মানুষজনের সাথে যুক্ত হতে পেরে আনন্দিত হয়। অপরদিকে জীবনে দুঃখ কষ্টের সম্মুখীন হলে উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষেরা তাদের এই দুঃখ গুলোকে দুঃখ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করে না বরং তারা নিজেদের কষ্ট কে বিরক্ত, একাকীত্ব, হতাশা, ইত্যাদি নামে সংজ্ঞায়িত করে। মানে জীবনের কোন পর্যায়ে কি ধরনের আবেগ কাজ করছে এটা নিয়ে তারা খুবই সচেতন থাকে। আর এসব কারণেই উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষেরা প্রতিকূল পরিস্থিতিকে সহজে কাটিয়ে উঠতে পারে। আমাদের মধ্যে অধিকাংশ মানুষ মন খারাপ আর হতাশা কে এক রকম বলে মনে করে। যার ফলশ্রুতিতে মন খারাপ হলে কি করা উচিত আর হতাশায় ভুগলে আমাদের কি করা উচিত তা আমরা বুঝতে পারি না। কিন্তু উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষেরা এসব পার্থক্য খুব সহজে বুঝতে পারেন। এই ধরনের মানুষেরা অন্যদের আবেগ ও খুব ভালভাবেই বুঝতে পারেন। যার ফলে এরা মানুষকে যথাযথ সাহায্য সাপোর্ট দিতে পারে। এজন্যই এরা আমাদের মাঝে ভালো বন্ধু ভালো সঙ্গী হিসাবে অনেক বেশি বিশ্বস্ত হয়।
উদার এবং বিবেচক প্রকৃতির
উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষ গ্রহণ অন্যদের সাথে নিজেকে খুব সহজে সংযুক্ত করতে পারেন তাদের বন্ধুদের এবং আশপাশের লোকদের ব্যাপারে ছোটখাটো সব বিষয়ে তারা মনে রাখতে পারে। এবং এর ফলশ্রুতিতে তারা সহজেই জানতে পারে কিভাবে ওই লোক গুলোকে সহায়তা করা যায় বা আনন্দ দেয়া যায়। উদাহরণস্বরূপ বলা যায় কারো প্রিয় ফুল সম্পর্কে যদি আপনার জানা থাকে তাহলে কোন অনুষ্ঠানে তাঁকে ওই ফুলটা উপহার দিলেই সে খুশি হবে।

চিন্তাভাবনা কি নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা
উচ্চ আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন মানুষেরা নেগেটিভ চিন্তাভাবনা কে খুব বেশি সিরিয়াসলি নেয় না এ ধরনের লোকেরা নেগেটিভ চিন্তা কে শুধু একটা চিন্তা হিসেবেই গণ্য করে এরা পরিস্থিতির কারণে সহজে আতঙ্কিত হয় না ফলে কোন বিষয়ে সমস্যায় জড়ালে এটা খুব সহজে বের হয়ে আসতে পারে। এদের আরও একটি বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এ ধরনের লোকেরা নিজের অসন্তোষকে কখনোই মনের মধ্যে পুষে রাখে না এবং অতীতের ভুল গুলোকে ভেবে তাদের বর্তমান সময়কে নষ্ট করে না। অতীত এর সব ভুল এবং নেগেটিভ সব চিন্তাকে তারা নিজেদের উন্নতির হাতিয়ার হিসেবে কাজে লাগায় এছাড়া এদের জীবনে অতীত নিয়ে ভাবার মতন সময় নেই।
মানুষের প্রশংসা করা আবেগীয় বুদ্ধিমত্তা মানুষরা অন্যের ভালো কাজের প্রশংসা করতে পারে তারা জানে খারাপ চিন্তা করা এবং উল্টাপাল্টা আবেগ নিজের মধ্যে স্থান দেয়া খুব সহজ কিন্তু পজিটিভ ব্যাপারে মনোযোগ দেওয়া তুলনামূলক কঠিন হলেও জরুরি।এরা মানুষকে তার ভালো কাজের জন্য সবসময় প্রশংসা করে ‌ ।
আমাদের মধ্যেই কিছু মানুষ প্রকৃতিগতভাবেই উচ্চ বুদ্ধিমত্তার অধিকারী হয়ে থাকে কিন্তু যে কেউ চাইলে নিজের বুদ্ধিমত্তা কে বাড়িয়ে উন্নত করে তুলতে পারে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *